সময়ের দাবী

আজকের পর থেকে আর কোন কষ্ট থাকবে না
থাকবেনা না পাওয়ার কোন বেদনা।
ক্ষুধার জ্বালায় দুই গ্লাস জল খেয়ে
স্বর্গীয় সুখ অনুভব করার অনুভুতি।
আস্টে পিস্টে চেপে ধরা পাওনা চুকে যাবে,
চুকে যাবে সকল দেয়া না দেয়ার অভিযোগ।
উঠোনের শিউলি গাছটা সাক্ষী আছে,
আমার সকল দীনতা, সকল অনটন কার জন্য।
কালকের বৈশাখী ঝরে উড়ে যাওয়া পাতাটাও জানে
আমি কেমন? তুমি কেমন? তোমরা সবাই কেমন?
জানালার কার্নিশে বাসাবাঁধা চড়ুই পাখিটা ও জানে,
আমাদের সংসার, আমাদের পৃথিবীর ব্যাপ্তি।
নগ্ন পায়ে মন্দিরের দরজায় দাঁড়িয়ে তুমি আমি
যে মালা জড়িয়েছিলাম সেটার বাঁধনও আজ ছিন্ন।
আসলেতো অনেক আগেই ভিন্ন হয়েছিল
আমাদের রান্না ঘর, আজ শুধু বাড়ীটা, পথটা।
মন? সেতো জমে যাওয়ার আগেই ভেঙ্গেছিল, যেমন,
সিমেন্ট কম হলে বালি গুলো ঝরে পরে নিঃশব্দে।
থাক, আর কিছু না জানুক এই জগত সংসার
শুধু এইটুকু জানুক আমরা দুজন আলাদা মানুষ।
ভিন্ন পোশাকের, একই বস্তুর ভিন্ন গঠনের দুজন।


0 মন্তব্য(গুলি):

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

About