একটি আলোর গল্প

ধরা যাক একটি দুপুর
ধরা যাক খুব ঝাঁঝাঁ রোদ
ধরা যাক ভীষণ খিদে
আকুল -- ঢেকেছে সব বোধ

ধরা যাক দুটি ছেলে সাথে
খিদেয় চোখেতে এতোজল
ধরা যাক স্টিয়ারিং এ হাত
পথ হারিয়েছি -- অচল

ধরা যাক সাথে টাকা আছে
জল ও খাবার কিছু নেই
ধরা যাক অন্য প্রদেশ
আমাদের ভাষা জানা নেই

ধরা যাক এক কুঁড়েঘর
হারানো সে রাস্তা-ওপর
ধরা যাক ও চারটি প্রাণ
দরজায় কড়া নাড়া দেয়

দ্বারখোলে দুটি বুড়োবুড়ি
ঘরে দুটি কালো-মেটে হাঁড়ি
ভাষা তারা চোখে জেনে নেয়
হাত ধরে ঘরে নিয়ে যায়

মাটির মেঝেতে পেতে পাত
দাঁত -- কাটে মানবিক ভাত
মোটাদানা ঝাল সম্বর
এ আমার অনন্ত-বোধ!

রূপকথার গান

জানলার ওপারে থেমে আছে বৃষ্টি - আমায় ভেজামাটির গন্ধ
পাঠালো হাওয়ায় মুড়িয়ে –
আমি বৃষ্টির দিকে তাকিয়ে হাসি।
ঝুমকোলতার চারা বাইছে জানলা দিয়ে -- আজ ফুল ফুটলো দুটো,
যার জন্যে অনেক ভালবেসে যত্ন করে এনেছিলাম -- সে নেয় নি –
আমিও অনাথ -- ফুলগুলির অলোকসুন্দর সরলতার দিকে তাকিয়ে
হাসি – বলি গাছটিকে-- ''এতো সুন্দর তোমার ফুল ফোটানো
তোমায় আদর করে কাছে টেনে কেউ নেবেই -- দেখো''
অপরাজিতা-নীল আকাশটি কালো করে বৃষ্টি নামলো –
আলো জ্বালাই নি ঘরে। এমন অঝোর ধারায়, -- নানান ছবি ভাসে –
আমি তাদের দিকেও তাকিয়ে হাসি –
আমি প্রতারণার দিকে তাকিয়ে হাসি -- কথা-দিয়ে-কথা-না-রাখা-দের
দিকে তাকিয়ে হাসি -- নিছক স্বার্থপরতার দিকে তাকিয়ে হাসি –
সংকীর্ণতা/আত্মকেন্দ্রিকতার দিকে তাকিয়ে হাসি -- অকৃতজ্ঞতার
দিকে তাকিয়ে হাসি -- আমার তীব্র অথচ খুব সাধারণ প্রত্যাশাগুলো
নিভিয়ে দেওয়া হাতের দিকে তাকিয়ে হাসতে থাকি -- আমারই
নিজস্ব নীরব মুচকি হাসি।
বিষণ্ণতার ঘন এক আঁধারে -- নীল নীল জোনাকির মতন
উড়তে থাকে স্মৃতির আলো
এতোজন যাঁরা নানান নিজস্ব ভাবে ভালোবেসেছেন আমায় –
সেইসব উচানো কৃতজ্ঞতা রূপকথা ও গান হয়ে ওঠে – গদ্যের অরণ্যে দুলতে থাকে
কবিতার অর্কিড ।
রহস্যময়ী কোন চোখ যেন এসব দেখে হাসে আমার দিকে তাকিয়ে , --
আমিও হেসে বলি ''রাজকন্যা ছাড়া আবার রূপকথা হয় নাকি?''
তখন আরো দূরবগাহ হয়ে ওঠে গান -- ঝুমকোলতার স্বপ্নভারাতুর
গন্ধে মেশে সব অনুভবের বীজ -- মেঘময় মুকুট পরে রাতআকাশও
শুনছে -- শুনছে এসব রূপকথার গান..
আমি আকাশের দিকেও তাকিয়ে হেসে ফেলি...


1 মন্তব্য(গুলি):

Indranil Sengupta বলেছেন...

শিক্ষিত হই এমন লেখা পড়ে- বড় ভালো

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

About