পিছনের লোক হে কবি!

আমি পিছনের লোক হে কবি!
তাই ভুলে গেছি তোমার আদি-অন্ত
শুধু তোমার মধ্যমায় ডুবে থেকে দেখি অপরূপ ছবি
ভুলে যাই কখন আসে শীত আর কখন আসে বসন্ত।

জীবনে তোমার অনুরাগের ঢেউ
দোলা দিয়ে যায় কুলি আর মজুরের ব্যথা ভরা ঘামে
তবু তোমার সুরে সুর মিলিয়ে প্রতিবাদ করে না কেউ
বরং বিদ্রুপ করে অনেকেই তোমার নামে ।

দুখের ঘরের দুখু মিয়া তুমি
ভাবতেই কষ্টের সাগরে ভেসে যায় পোড়া বুক
তবুও মেঘ হয়ে ভরালে এ হৃদয় সাহারার মরুভূমি
তোমার সৃষ্টিতে মেটাই তৃষা, মনটা সবুজ হয়ে আসে সুখ।

একাকী বসে যখন ভাবি তোমার বাকরুদ্ধ দিন
ব্যথার অশ্রুতে দুচোখ ভেসে যায় ঝরণার মত
কষ্টে জমানো মেঘ আশাহত হয়, সুখ পাখিরা দূর দেশে হয় বিলীন
মনে পড়ে ও হৃদয় আঘাতে আঘাতে হয়েছে পাথর অবিরত।

আমি তোমার মধ্যমা নিয়ে ভাবি
হে প্রিয় কবি নজরুল!
তাই বিধাতার কাছে একটাই করি দাবী
তোমার কবরে যেন থাকে স্বর্গ সুখের ফুল।

তোমার আমার দেখা হবে শেষ রাতে এক বিছানায়
যে পথে তুমি চলে গেছো দূরে ;
সে পথে সবারই একবার করে ডাকে ইশারায়
তবুও সবাই ভয়ে কাঁপে থরথর, বিরহের সুরে। 

0 মন্তব্য(গুলি):

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

About