মানুষী

পরে নাও লাল,বাদামি পাথুরে
দুর্গের খোলস
চৈতন্যের লৌহ বর্মে বেঁধে রাখো
শান্তির সবুজ উত্তরীয়
ছুঁড়ে দাও যুদ্ধ রথ থেকে
ব্যথার ঘুঙুর
শঙ্খ খোলসে লিখে রাখো
অনার্যের মুক্তি গাঁথা
পক্ষীরাজের পিঠে দিও রেশমী
কোমল চাবুক
লৌহকপাটে আমাদের নাম
তুমিই লিখো
সোনার সিংহাসন ধুয়ে দিয়ে গেছে কতো
নোনা স্রোত জানা নেই
কেন সুঠাম বাহু থেকে ঝরে শুধু
আপসের লোহিত কাতরতা
কেন উদ্দাম কালবৈশাখীর কালো মেঘ  তোমাকেই বইতে হয় নীলাকাশ
স্পর্শ করতে হয় একাই
জীবনের চোরা গলি
যখন মানুষের ঘাম বয়ে নিয়ে যায়  নদীগুলো
জীবন্ত অভিমানী সূর্য পশ্চিমে
হয় ধাবমান,
তখন রাজহংসীর শুভ্র পালকে 
জাগে গভীর উড়ান
এবার ভাঙন থামুক নটরাজের
তান্ডব নৃত্যে
অদ্রিজা তুমিই হও দুর্গের অতন্দ্রী প্রহরী
সৃষ্টি করো স্বপ্নার্দ্র
শান্তির পদ্মাচর

0 মন্তব্য(গুলি):

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

About