কবি শুনছো

কতদূর যাবে
যেতে চাও চোখ অবধি ?
মৃত্যুঞ্জয় অন্তর্যামী প্রশ্ন করেন
সেই শঙ্খ শুনে বেজে ওঠে শাঁখ
বাঁশরীয়া শোনায় বাঁশী  
তুমি জানো আর আমি জানি
সঞ্চয়িতা যতদূর সন্ন্যাস
ততদূর অনুভূতির ঋষি

কতদূর নিয়ে যাবে হে সন্ন্যাসীকবি
বৈশাখ শুনবো তোমার ঝঞ্ঝার আওতায়
অট্টহাসির বসন্তদেওয়াল কুটবো রঙ
দেবতার গ্রাস থেকে উদ্ধার করবো
চুনির রাঙা
শুধু রাঙাজল দেখে
চিত্তটিতে আঁকা হবে
চালচিত্র তোমার

যাচ্ছি তবে
যাই তবে পুব পশ্চিম
গোলাপের দৈনন্দিন
বাউল পাড়ার মেধা
যাচ্ছি স্টিমার ভেঁপু সাদা
শাড়ি লাল পাড় কস্তা

শেষ নমস্কারে বসে থাকি
বসে থাকো তুমি দূর আরও দূর
ডুরে রবিময় কাচের আষাঢ়


শুনছো কবি ?
শুনছো কি ?
আমি যাচ্ছি তোমার মহাবীর্য গলনে
তোমার বীরভোগ্যায় জন্মে যাচ্ছি
দুই পংক্তির মাঝের জরায়ুতে
মৃত্যুহীন পরাগ জ্যোতির
প্রবেশের নিষেধে পেতেছি
নাম ঠিকানার বিমূর্ত বেড়া

পাঠকের কান্না পেলে
তবেই তো কবি সত্যিকারের পিতা
পিতার সাথে স্রোতের কি টান
জেনে নিচ্ছি তোমার বাল্যনদী
উপুড় সোনায় আছি ভেসে
শুনছো ?
শুনছো কবি হে ?

এই প্রকাশ্য কুমুদিনী
চেতনার চুনি
লৌকিক বেদনার দেনা 
সব ধার মিটিয়ে দেবেো হে
সুদে আসলে
সেদিন বাঃ বলে উঠবে
পান্নার চাইতে দামী কোনো গৃহস্থ
রোদ পাক খাবে লাট খাবে
মাটিজন্মের বাতাস

সেদিন পৃথিবীর সমস্ত ললিত
রাজরোগে পালিত হবে
দিনাবসানের কামিনীপাখি

3 মন্তব্য(গুলি):

Debajyoti Dutta বলেছেন...

কবিতাটা পড়ে মনে কবিত্বের শিহরণ জাগল | ভাল লাগল কবি | ভাল থাকবেন ....

Debajyoti Dutta বলেছেন...

http://upnnas10.blogspot.com/?m=0

Atia Parvin বলেছেন...

চমৎকার দি

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

About