বৃক্ষ ও সমুদ্র


একদিন সমুদ্র ছুঁতে চেয়েছিল বৃক্ষের শরীর।
পাহাড়ের কোল ঘেষে বয়ে চলা ঝর্নার জলে,
শুকনো পাতারা ভেসে গেছে খড়কুটোর সাথে।
জলের ওপারে দাড়িয়ে বৃক্ষ তা দেখে।
বুকের আকাশে পাখা মেলে বন্ধ্যা স্বপ্ন।
লোনা জলে ছায়া পড়ে সবুজের।
সমুদ্রের তৃষ্ণা রাড়ে,
সব জল মেঘ হয়ে বৃক্ষকে ছুতে চায়।
তারপর কোন একদিন ইচ্ছেরা উষ্ণ হতেহতে,
সমুদ্রে তোলে ঝড়।
উত্তাল তরঙ্গে ডুবে যায় বৃক্ষের শিখর।
অথপর ডালপালা নিয়ে,বৃক্ষ ঝাপিয়ে পবে সমুদ্রে।
গভীরে গেঁথে যায় বৃক্ষের শরীর।
যে সমুদ্র একদিন বৃক্ষকে ছুঁতে চেয়েছিলো,
তার নীলে বৃক্ষের সবুজ করে খেলা।
আর বৃক্ষের মন সমুদ্রর জলে ভেসে ভেসে,
কান পেতে শুনে মহাসমুদ্রের কল্লোল।


মিলন বনিক
সুখের সকাল
  
পথে যেতে যেতে
তুমি হাত বাড়িয়ে বৃষ্টি ছুঁয়ে দেখলে
কতটা প্রেমে, অ-প্রেমে নয়তো ছলনায়।
সুখের স্বপ্ন, আলপনা আঁকে
স্বপ্ন বিভোর জল জোছনায়। 
তোমার বৃষ্টি ভেজা হাতটি ছুঁতে চাই
বড়  বেশি অনূভবে, ভালোবাসার বিশ্বাসে
ছুঁয়ে যাওয়া অনূভুতির পরশে
ফিরে পাবো কিঞ্চিত উষ্ণতা।
সেতো বৃষ্টির চেয়ে বেশী কিছু নয়
যদিও তা স্বপ্নময়। বলতে না পারার অক্ষমতা
আড়াল করে সহ¯্র যোজন দুরত্ব।
মন ছুঁতে চেয়েছি বলে
মনের আড়ালে বসবাস সকাল বিকাল।
এখন বৃষ্টি এলেই ইচ্ছে জাগে মনের কোণে
এবার আমিও ভিজাবো নিজেকে, আমিও দেখবো
তোমার মত করে সুখের সকাল।   
------------------

0 মন্তব্য(গুলি):

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

About