যাজক

এ সময়ে হাহুতাশ ছাড়া
দেবার কিচ্ছুটি নেই সত্যি সত্যিকারে;  
সে আমি যতই বলি 
নৈবেদ্যে ভরিয়ে দেব অষ্ট উপাচার ।
তুমি তো যাচক নও
তাই তুমি অনায়াসে বেছে নিতে পারো
ভ্রু কুঞ্চন অথবা উন্নতি,
উচ্ছ্বসিত আশীর্বাদী হাত, 
ইচ্ছে মত লিখে দিতে পারো সব ষোড়শ উপাঙ্গ ।       
এ কথা তুমিও জান   
যাজকের ফর্দমালা
শূন্যহীন শুভ-লাভে শুরু
ক্রমাঙ্কেও শূন্যতা বিহীন  ।   
 
সে সব উদ্বৃত্ত কথা তোলা থাক আজ; 
তার থেকে এই দেখ সাজিয়ে রেখেছি
সমস্ত দিনের প্রাপ্তি ফতুয়ায় দাগে
কপালে ভাগ্যের ভাঙা রৈখিক রহস্য  
সারাটা মেঝের বর্তে    
ছড়ানো ছেটানো কিছু কবিতার পাতা
কুলুঙের অধিকারে মধ্যবিত্ত আলো
মাকড়ীর জালে ঢাকা
সাবেকের জমে থাকা অলীক বিশ্বাস;    

আর সব শেষে নিঃশেষ ভাঁড়ারে কিছু মূষিক বিলাস। 

জানি তুমি পড়ে নেবে এর থেকে বেশী কিছু কথা অনায়াসে
স্পষ্ট করে বলে দেবে কোন দিকে ভাগ্য আর
কোন দিকে ভাগের নিকেশ ।

আচমন শুদ্ধতা ছোঁয়াবে  
সংকল্পে নিশ্চিত হব অস্তিত্বকে উচ্চারণ করে
তারপর অনিবার্য সাঁকোর সন্ধানে
অস্ফুট দুর্বোধ্য কথা অনুকার শেষ হলে  
তর্পণের নিবেদনে
নির্দ্বিধায় মেখে নেব অনন্ত নিঃশেষ ।
 
প্রণামে প্রমাণহীন রয়ে যাবে হয়তবা অনীহার লেশ

তুমিই শুনিয়ে দিও পুনর্ভব উপকথা 
যজ্ঞের বিশেষ। 



0 মন্তব্য(গুলি):

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

About