কাজের ছেলে

দাদখানি চাল,মুসুরির ডাল,চিনি-পাতা দৈ,
দুটা পাকা বেল,সরিষার তেল,ডিম-ভরা কৈ।
পথে হেঁটে চলি,মনে মনে বলি,পাছে হয় ভুল;
ভুল যদি হয়,মা তবে নিশ্চয়,ছিঁড়ে দেবে চুল।
দাদখানি চাল,মুসুরির ডাল,চিনি-পাতা দৈ,
দুটা পাকা বেল,সরিষার তেল,ডিম-ভরা কৈ।
বাহবা বাহবা- ভোলা ভূতো হাবা খেলিছে তো বেশ।
দেখিব খেলাতে,কে হারে কে জেতে,কেনা হলে শেষ।
দাদ্খানি চাল, মুসুরির ডাল,চিনি-পাতা দৈ,
ডিম ভরা বেল,দুটা পাকা তেল,সরিষার কৈ।
ওই তো ওখানে ঘুড়ি ধরে টানে,ঘোষেদের ননী:
আমি যদি পাই,তা হলে উড়াই আকাশে এখনি।
দাদখানি তেল,ডিম-ভরা বেল,দুটা পাকা দৈ,
সরিষার চাল,চিনি-পাতা ডাল,মুসুরির কৈ!
এসেছি দোকানে-কিনি এই খানে,যদি কিছু পাই;
মা যাহা বলেছে,ঠিক মনে আছে,তাতে ভুল নাই!
দাদখানি বেল,মুসুরির তেল,সরিষার কৈ,
চিনি-পাতা চাল,দুটা পাকা ডাল,ডিম-ভরা দৈ।

মজার দেশ

এক যে আছে মজার দেশ,
সব রকমে ভালো,
রাত্তিরেতে বেজায় রোদ,
দিনে চাঁদের আলো ।
আকাশ সেথা সবুজ বরন
গাছের পাতা নীল ,
ডাঙায় চরে রুই কাতলা
জলের মাঝে চিল !
সেই দেশেতে বেড়াল পালায় ,
নেংটি-ইঁদুর দেখে ;
ছেলেরা খায় ক্যাস্টর-অয়েল-
রসগোল্লা রেখে !
মন্ডা-মিঠাই তেতো সেথা ,
ওষুধ লাগে ভালো ;
অন্ধকারটা সাদা দেখায় ,
সাদা জিনিষ কালো !
ছেলেরা সব খেলা ফেলে
বই নিয়ে বসে পড়ে ;
মুখে লাগাম দিয়ে ঘোড়া
লোকের পিঠে চড়ে ;
ঘুড়ির হাতে বাঁশের লাটাই ,
উড়তে থাকে ছেলে ;
বরশি দিয়ে মানুষ গাঁথে ,
মাছেরা ছিপ ফেলে ;
জিলিপি সে তেরে আসে ,
কামড়ে দিতে চায় !
কচুরি আর রসগোল্লা
ছেলে ধরে খায় !
পায়ে ছাতা দিয়ে লোকে
হাতে হেঁটে চলে !
ডাঙায় ভাসে নৌকা জাহাজ ,
গাড়ি ছোটে জলে !
মজার দেশের মজার কথা
বলবো কত আর ;
চোখ খুললে যায় না দেখা
মুদলে পরিষ্কার ।


কাকাতুয়া

কাকাতুয়া,কাকাতুয়া,আমার যাদুমণি,

সোনার ঘড়ি কি বলিছে,বল দেখি শুনি ?

বলিছে সোনার ঘড়ি,"টিক্ টিক্ টিক্,

যা কিছু করিতে আছে,করে ফেল ঠিক।




0 মন্তব্য(গুলি):

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

About