পথের দুধারে

কিছুদিন ধরে মনে হয়
পার্কের শিশুদের অন্তহীন উৎসাহে
ঢেউ-কুচ-কুচ ওঠানামা
চুপচাপ দেখে ওঠা হয়নি বোধহয় ।
যেন দেখা হয়না
বৃষ্টির ফোঁটাখানা
পাতার প্রান্তে যে ঝুলে
আশপাশ সমস্ত প্রতিবিম্ব বুকে ধরে রেখে
খুব ধীরে নিজেকেও বড় করে তোলে
অবশেষে, একটা সময়
নিঃশব্দে “টুপুস” শব্দ করে
পাতা থেকে ঠিক নীচে ফুল-পাপড়িতে পড়ে 
রেণু–টেনু উপহার নিয়ে তারপর নিচের ডালেতে
হলুদ চড়ুইটাকে অবাকটি করে দিয়ে হাসে
ছোট্ট স্নানের খুশি ভাসে
গা-ঝাড়া পালক ফুলিয়ে কত তার সাজ-গোজ সে’সময়
বেশ কিছুদিন হোল এই সব দেখিনি বোধহয়।

দৌড় ... কত দৌড় ... শুধু দৌড় ... পেরোচ্ছি পথ
অনেকটা দূরত্ব মেপে নেব
কবে যেন কার কাছে করেছি শপথ
কখন দুপায়ে নীল ঘাসফুল সব গিয়েছি মাড়িয়ে
পথের দু-পাশে রংছবি কত সোনাঝুরি  
সব যেন ফেলেছি হারিয়ে

সময় চলেছে হতে শেষ
মোড়ক, আরও কত মোড়ক খোলার সাথে সাথে
ভাবি উপহার ‘জীবন’কে এইবার খুঁজে পেয়ে যাব হাতে 

বারবার তার বেঁধে কেটে গেল দিন
সারাদিন সুর সেধে ভুলে যাই যদি শেষ গান
অখ্যাত এ কবি’র যদি পরিচয় ভোলে পৃথিবী প্রাচীন 
সুর্য ডোবার আগে পূরবী’র সমস্ত আলাপ’টুকু গেয়ে উঠবার 
সময় কি পাবে এই প্রাণ!

0 মন্তব্য(গুলি):

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

About