কবি

মা নিষাদ তমঃ গময়ঃ
কর্ণে আসিতেই ঘাড় ঘুরাইয়া ক্রৌঞ্চ দেখিল রক্তবর্ণ কৌপীন
পরিহিত এক বাবরি চুলো জলে নামিয়া আসিতেছে । উহার দুই হস্ত
বক্ষে জড়ো করা । দৃষ্টি যেন কোন দিকচক্রবালে নিবদ্ধ । দৃষ্টির
ভাষায় কত জন্মের তপস্যা । বল্মীক আবৃত তাহার দেহ ঠুকরাইয়া
যাইতেছে বাবুই পক্ষী । তাহার উদাস রক্তচরণে নত হইল নদীজল ।
তীব্র গ্রহণে স্রোতে ভাসিয়া গেল নামমাত্র বসন । ডুব দিলেন তিনি
যেন অনন্তকালের জন্য । ক্রৌঞ্চ অপেক্ষায় রহিল এক পদে । চক্ষু
মুদিয়া আসিতে চাহে । অকস্মাৎ ঘোর কাটিল ভুসশব্দে । ওই যে
তিনি মস্তক উত্তোলন করিয়াছেন । বিস্ময়াবিষ্ট ক্রৌঞ্চ লক্ষ্য করিল
তাহার বাবরি গিয়াছে , শিরোপরি এক অলৌকিক বিভা
ঠিকরাইতেছে , মুখেচোখে অদ্ভুত প্রশান্তি । বল্মীক খসিয়া
আত্মপ্রকাশ করিয়াছে এক উজ্জ্বল সাধক কবি । মুহূর্তে মৃত চরায়
জাগিয়া উঠিল গান , কল কল শব্দের নদী নৃত্য ছন্দে কূল ভাসাইয়া
জানাইতে জানাইতে চলিল , ‘আসিয়াছে , সে আসিয়াছে। সার্থক
জন্ম হইল ক্রৌঞ্চের । তাহার শিখা মৃদু বাতাসে তির তির করিয়া
সম্মতি জানাইল আনন্দযজ্ঞে সামিল হইতে । অমৃত ফলের ন্যায়
খসিয়া পড়িল সূর্য রাত্রির অঞ্চলে ।

0 মন্তব্য(গুলি):

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

About