বড় একা মনে হয়

বড় একা মনে হয় 
সমুদ্র স্রোতে ভেসে আসা ফেনিল বেলাভূমে
মৃত্যু ঘুমে শুয়ে থাকা শিশু আইলানের মত
আমার অগ্নিলা নেত্রপল্লবের অন্দর থেকে
দুর্ধর্ষ স্রোতে বু্দবুদ স্বপ্নের অবিরল ধারা 
আজন্ম চেনা প্রিয়দের ছেঁড়াখোঁড়া সমাধির
ঘাসে ঢাকা মাটির অলিন্দে ছায়া ছায়া
ঘুরপাক খায় কঙ্কালের আবছা শরীরে।
যে দুজন মানব মানবীর রোদেলা স্বপ্ন আমি
এই পৃথিবীর হলুদ স্বপ্নিল ঘাসের অরণ্যে
ঘাসের সংসারে জন্ম নিয়ে খেলেছি বেড়েছি
বহুদিন হল তারা ঘুম ঘুম সমাধির অন্ধকার ঘরে
ঘুমিয়ে পড়েছে ন্যাতানো ঘাসের গন্ধহীন অবর্ণিল
আকারে তারপর মাটিতে মিশে মাটি হয়ে গেছে।
মাটি হয়ে গেছে সে পুরুষ সঙ্গী
একটা জীবনের স্বল্প পরিসর বাদে
সবটা নিয়েই যে বড় স্পষ্ট হয়ে ছিল, 
এই হয় এমনই হয় ঘাসের সংসারে। 
বড় একা হয়ে যেতে হয়
একদিন অতীতের দুর্ভাগা স্বপ্নদের জঞ্জালে,
আমি এক পৃথিবী মৃত্যুর মুখ দেখেছি
ইচ্ছে হয় একটি একটি করে সব নাম
প্যাপিরাসের পাতায় লিখে মিশরের পিরামিডে 
সংরক্ষণ করে রাখি আগামী পৃথিবীর জন্য 
কঠিন বটে বড় সুকঠিন।
পিরামিডগুলোও তো জমকালো সমাধিসৌধ
বহু বহু কাল বহু বহু জনের শ্রমে হয়েছে নির্মাণ
নির্মিতি কৌশল সংরক্ষিত হয়েছে পরম্পরা ক্রমে,
সেই সব শ্রমজীবীদের সমাধি ছিল
নদীকূলে ঘাসেদের সংসারে
বহতা নদীর তীব্র স্রোতে গিয়েছে হাড়গোড় সহ
সবই কোথায় ভেসে  কে জানে!
এইতো পৃথিবীর সরল ধারাপাত।


0 মন্তব্য(গুলি):

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

About