ঈশ্বর কণা

ঢেউ'য়ের সাথে সহবাসে মত্ত চোখ
আর ভোরের নরম আলোয় ভেজাঠোঁট মিষ্টি অনুভূতির
আলতো ছোঁয়ায় আবদ্ধ হলে   
শিশিরের নরম আবেশ হেঁটে যায় 
জীবনের অতীত বর্তমানের মধ্যবর্তী এঁদো গলিতে 
ঈশ্বরের ঠিকানা রেখে

যেখানে--
স্পর্শরেখায় হেঁটে  যায় এক পৃথিবী সৃষ্টি,
ভাবনার পালঙ্কে এক নিমেষে  গলে পড়ে
একটি বাঁধন ছেঁড়া দিনের আয়ু,
আর  
একটি বেওয়ারিস স্বপ্ন আকাশ হতে চায়,
যার সীমানাবিহীন দূরত্বে নিজেকে হারিয়ে
ছুঁয়ে নেয়ঈশ্বর কণা'

অলীক পরিবর্তন

বৃত্তের বাইরে জীবন  যখন  ছুটে চলে
 গণিতের হিসেব ভুলে
তখন তর্জনীর ডগায় আঁকা হয় রক্ত চক্ষু,
তবুও মুঠোতে সাহসের অস্ত্র লড়াই করতে জানলে
বিজয়ী কন্ঠ ছুঁতে পারে পরিবর্তনের সুর

এমনি একটি উক্তি মুখস্থ করে
ধীরে ধীরে পৃথিবীর পথে পা রাখতে যাচ্ছিল
ধর্ষিত কুমারী মা'য়ের গর্ভে লালিত  ভ্রুণটি....

হঠাৎ ঝড়ে চুরমার হওয়া স্টেজে
চাপা পড়া এই কাহিনীর শেষ  দৃশ্য
জিজ্ঞাসার চিহ্নে চুবিয়ে নিয়ে মেলে দিলে
 বাষ্পরা গলে গলে পড়তে থাকে
ডাস্টবিনে পড়ে থাকা রক্তমাংসের  মাঝে

যদিও স্বপ্নে প্রতিদিন দৃশ্যায়িত হয়... 
'ধর্ষিত পুরুষের চিতার আগুন জ্বলছে
কুমারী মা'য়ের চোখের আয়নায়,
আর সদ্য প্রস্ফুটিত প্রাণের মুঠোয়
রাখা আছে একটি অনুদঘাত পৃথিবী'  

বাস্তবে যার নাম  "অলীক  পরিবর্তন "


0 মন্তব্য(গুলি):

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

About