হবে কালজয়ী 

সুনীতি, তুমি অতি নির্বোধ, তা না হলে
অবিশ্বাসের করতলে রাখো বিশ্বাসের হাত !
অনির্বাণ জ্বলতে জ্বলতে তুমি শেষ হবে।

মেয়ে, সমাজ সংসার -দেশ হাওয়া -
মাটির ঘর তোমার উপযুক্ত নয়, নয় শালীন-
তা বোঝো না !

তুমি কী দেখতে পাচ্ছো না তীক্ষ্ণ চক্ষু
হায়না দাঁত বের করে আসছে ধেয়ে,
তেড়ে আসছে হিংস্র নখের ঈগল, ঝুঁকে আছে
শকুন, তোমার আশ্রয় নেই, যা-ছিল তা তো তুমি
হারিয়ে ফেলেছ যুদ্ধের মাতাল দামামায়।

এখন শুধু অনিঃশেষ দুঃখবোধ,
যা তোমাকে সব থেকে ভিন্ন করে রেখেছে,
তবে আবার কেন পা দাও-
তাদেরই পেতে রাখা রঙিন ফাঁদে।

বারাঙ্গনা কিংবা বীরাঙ্গনা কী তুমি !
যে রাত কাটাবে ফুটপাতে
অশ্রদ্ধায় তোমাকে স্মরণ করবে লোকে, আর
যাপিত জীবনে তুমি পাগল-
হাতটা পেতে রাখবে ওদেরই সামনে, নতজানু !

তুমি বুঝি নুলো ভিখারি ?
রাস্তা পারাপারে সঙ্গে নেবে অন্য মানুষ, অন্যকিছু !
তুমি তো মেয়ে নও, ছিলে না কখনও, নারী হয়েও
ওঠনি আজ, তুমি শুধুই একজন মানুষ, দুর্বল নও
সবল, কর্মঠ দক্ষযজ্ঞে হবে কালজয়ী।





0 মন্তব্য(গুলি):

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

About