ঈশ্বর মানুষ

ঈশ্বর আর মানুষ নিয়ে যত দ্বন্দ্ব আর কূটকচাল! 
মানুষ তো প্রত্যক্ষগোচর,কিন্তু তিনি?
আজো পেলাম না কাউকে স্বচক্ষে দেখেছে ঈশ্বর!
তবু আস্তিক আর নাস্তিকের যুক্তি তর্ক যুদ্ধের শেষ নেই।
ঈশ্বর বলতে কতগুলি ধর্মগ্রন্থ পুঁথি কহাওত
চালু আছে বহুকাল ধরে,চলছে আজও, 
চলবে কতকাল নিশ্চিত বলা যায়না।
স্বচক্ষে ঈশ্বর দর্শন ঘটেনা পাপীতাপী বলে,
জন্মক্ষণেই পাপী? স্রষ্টা ঈশ্বর কি বিশুদ্ধ
একেবারে পাপশূন্য মানবক সৃজনে অক্ষম?
তোমার ঈশ্বর আমার ঈশ্বর সবার ঈশ্বর কি তাই?  
আর ওসব পুণ্যশ্লোক ধর্মগ্রন্থমালা অবিনাশী?
মনে হয় ঘূণগোকা অতিতৎপর সবার অজান্তে , 
একদিন সবার জ্ঞাতে ঝুরঝুর ঝরে যাবে সব। 
সেদিন ক্ষ্যাপাটে বিজ্ঞানীরা গবেষণাগারে 
রাতদিন
এক করে খুঁজে যাবেন ঈশ্বরকণার কণা। 
সেদিন কবে আসবে যেদিন ঈশ্বর মানুষ হবে, 
সীমায়িত আয়ুবলয়ে হাসবে আত্মমহিমায়, 
কালস্রোতে জঞ্জাল ভণ্ডামি গোঁড়ামি যাবে ভেসে। 

1 মন্তব্য(গুলি):

Partha Roy বলেছেন...

দিদির লেখা আমাকে সব সময় ভাবায়।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

About