শিকাগো

ঝাঁপিটা নাও। আমার কাছে একটা বর্শা।
একমুঠো বারুদ আর এক টুকরো চকমকি, ওটা তোমার কাছেই থাক।
বোঝোই তো শ্বাপদ-সংকুল এখন জঙ্গলের রাত!
এই দ্যাখো সাঁকোটা পেরিয়ে গেলেই আমিও কেমন জানোয়ার হয়ে উঠি!
তুমি চকমকিতে ঘষা দাও...
যে চোখে সাগর ছুঁয়েছিলে ,আজ দ্যাখাবো ওতে হায়েনার ভ্রুকুটি!
এবার তুমি বারুদ ছুঁড়ে মারো ...
যেখানে নদী ছিল, পাশ ফিরে শুয়ে দ্যাখো আজানু গিরিখাত!
এবার তুমি নিঃষ্প্রাণ দগ্ধ হরিণী।
আর আমার চোখের কোণা ক্ষত করতে থাকুক মাংস প্রিয় মাছির দল,
তবুও আমি শিকার আগলে পড়ে থাকব
উষ্ণ প্রস্রবণের মতো চোখ দুটি জাগিয়ে
যতক্ষণ না একটা শিকারির শেষ ইচ্ছা জীবিত থাকে !
আর ঘন ঘন ডাকতে থাকবো প্রিয় পরিচিত নামে !
নদীটা করুন আর্তিতে বাষ্প হতে থাকবে,
আর একে একে ফিরে যাবে মাংসভূক অতিথির দল।
তারপর মেঘের গায়ে যখন সরে সরে যাবে চাঁদ 
ঠিক তখন থেকে তুমি একটু একটু করে আবার জীবিত হতে থাকবে---
যেমন ভাবে কবর থেকে জেগে ওঠে ভুঁইচাপা অপ্সরা!
দিনের আলো ফুটবার আগেই রাত্রির সব কথা ভুলে যাবো আমি।
তারপর যদি বলি---
সারারাত তোমাকে কী নামে ডেকেছিলাম বলো তো?
তুমি আমার চোখে একমুঠো ধুনো ছড়িয়ে দিয়ে বলবে,  
সেই যে বড়ো মাংসের হাট...শিকাগো



0 মন্তব্য(গুলি):

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

About