পাইনে সাড়া

প্রতিধ্বনি খুঁজে ফিরি ভুতগ্রস্তের মতো।
একটা অতল খাদের কিনারে দাঁড়িয়ে
শূণ্য দুহাত জড়ো করি মুখের দুপাশে,
সুদূর পাইন ছায়াকে ডাকি হোওও...হোওও
আর ফিরতি কান পাতি নিশ্চিত প্রতীক্ষায়।
যে তুলিতে ঘাসরঙ বুলিয়েছিলাম পাহাড়ের ঢালে
রঙ শুকিয়েছে তার অহেতুক কালক্ষেপে, তাই
খাদের পেপার হোয়াইটে কিছু বিবর্ণ ঝড় আঁকি।
ওই এলোমেলো হাওয়াতেই বুঝি প্রত্যুত্তর হারায় পথ
আর আমি শুয়ে থাকি চিৎ পাহাড়টার মাথায়,
যেখান থেকে অমাবস্যা রাতে ব্রহ্মাণ্ড দেখা যায়
মূক ও বধির অভ্যাসে...

দোষী

পারলে আমাকে ভুলে যেও,
বলেছিল নাকের ডগা থেকে টুপ ঝরা ঘাম।
পারলে আমাকে ক্ষমা কোরো,
বলেছিল চোখের অতল মাখানো ভালোবাসা।
আমি যা পারিনি পেরেছ তুমি,
বলেছিল দায়িত্বজ্ঞানহীন এক অ্যামিগডালা।
তারপর নিঃসঙ্গ ঘাটসিঁড়িটার শেষ ধাপে বসে
অনন্ত কেঁদেছিল ওরা তিনজন... তবু
কেউ কাউকে দোষারোপ করেনি।



1 মন্তব্য(গুলি):

PALASH KUMAR Pal বলেছেন...

দোষী বেশ লাগল।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

About