জানালা

সেবার শিলাবৃষ্টি তে জানালার উপরের থাকের একটা কাঁচ 
ঝনঝন করে ভেঙে পড়ল। আজ সারাব কাল সারাব করে করে 
অভ্যাস হয়ে গেল ফাঁকা জানালায় আকাশ দেখা। সে কখনো টাঙিয়ে 
রাখে শরৎ কখনো শ্রাবণ । আমার ধূসর যৌবন আকাশের প্রেমে পড়ে গেল । 
সেই জানালায় মেঘমল্লার আসে আহির ভৈঁরো আসে আসে কৃষ্ণকলি 
কুঁহু কেকা । আর এলেন তিনি। গানের বলাকা উড়ে যায় জোব্বার 
ঝুল বরাবর। সন্তাপ বিষন্নতা বিচ্ছেদ নত হয়ে বসে তার ধেয়ানে। 
রাতের মত কষ্ট আসে, আসে খুশিমুখ স্ফটিকের চাঁদ তারা। মশারির চালে 
ঝুলে থাকে জোনাকি নীরবতা। ঘন শ্বাসে দমকে দমকে বিদ্যুত। 
আমার প্রাণ নিয়ে খেলায় মাতেন শূন্যতা হয়ে নিরাকার হয়ে তিনি। 
ভরে উঠি নিঃস্ব হব বলে। নিঃস্ব হই নিরহংকারের সাধনায়। অলৌকিক বাণী 
সুর হয়ে বাজে আমাকে তন্ত্রী করে। সাঁতরাতে সাঁতরাতে তোমায় পাই 
পিতা রূপে মাতা রূপে বন্ধু প্রেমিক সন্তান সহচর রূপে,দেবতা অসুর 
যুদ্ধ অস্ত্র শান্ত পরিশ্রান্ত সমাধি রূপে । খোলসে আঁটি না। 
নির্ভার ব্যাপিত হই মুহূর্ত থেকে আগামীতে আরো পরের গা ছমছমে। 
শিলাবৃষ্টি হয় মাঝেসাঝে। আরো কিছুকাঁচ ভেঙে যেতেই পারে। 
আমি মোটেই সারানোর কথা মনে করব না।


1 মন্তব্য(গুলি):

Soumitra Chakraborty বলেছেন...

অনুপম প্রকাশ।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

About