রাজশ্রী বন্দ্যাপাধ্যায়

কাঠগোলাপ

এখনও কিছু অপেক্ষার শিকড় গেড়ে বসে আছে অনন্ত গভীরে ৷
রজনীগন্ধার মৃত্যু হয় রাত পেরোলেই ,
তাই কাঠগোলাপকে আমি ভালোবেসেছি ৷

বুড়ো ছাতিম গাছটার ছাল বাকলের নীচে বর্ষরেখা যত গভীর হয় ,
ফলগুলো ততো পাংশুটে আর বিস্বাদ হয়েছে ৷

সন্ধ্যামণিকে একবার ভোগ করে বাবুদের ছেলে লাম্পট্ট্যের হাসি হেসেছিল ,
তারপর থেকে সন্ধ্যামণি প্রতিদিন
ঐ নলবনের ধারে গিয়ে বাবুর জন্য অপেক্ষা করে ৷

নবারুণ মাস্টারমশাই ইতিহাস পড়াতে পড়াতে বলছিলেন
"এবার নতুন সমাজ গড়ে উঠবে -আর কোন উচ্চ নীচের ভেদ থাকবে না ",
বিরসা আজও ভাবে একদিন ঠিক জমিদার গিন্নি তাকে ডেকে
রাধা-মাধবের প্রসাদ দেবে ৷

সেই যে সেদিন,সদ্য কারখানায় ছাঁটাই ঋজুর বাবা,
পুজোর জামা আনবে বলে বাড়ি থেকে বেরলেন 
তারপর তিনটে পূজো পার হয়ে গেল,আজও ঋজু বাবার অপেক্ষায় ৷

নোনা ধরা দেওয়ালে ,স্মৃতিগুলোও আজ নোনতা 
তবু কেন যে হাতড়ে বেড়াই ,
উপেক্ষার অভ্যাসটা আজও রপ্ত করে উঠতে পারলাম না ৷৷




কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন