চিরন্তন বন্দ্যোপাধ্যায়

 প্রলাপ


চারিদিকে কিলবিলে মানুষের মত অন্ধকার;

আমার হাতে পায়ে পেটে নিশ্বাস ফেলে:

কাঁচের টুকরোর মত শব্দগুলো,

কেটে যায় চারপাশ, বোকা বোকা মন;

বাজারের আঁশকাটা বটি, মাছের লাশের খোঁজ করে।

 

মর্গের ঠান্ডা ঘরে শুয়ে দেখতে হবে, নিস্তব্ধ রাত কিছু বলে?

আজ অবধি শোনা হল কবে;

চারিদিকে ধংসের লীলা, আমার তো এখনো সবুজ ভালো লাগে।

 

চুপ কর, চুপ কর দেখি

আমায় এখন একটা কবিতা লিখতে হবে,

 বড় বড় আইনের বইগুলো পড়ে;

মাত্র তিনহাজার বাঘ বেঁচে আছে,

তুমি কেনো দামি বলতে পারো?

 

ভীড় বাসে ঘেঁষাঘেঁষি করে, বাড়ি ফেরা;

ধাক্কা লাগলে ভেংগে যেতে পারে

 

হাতে ধরা খুকুর ওষুধ, ছেলেটা আমার বড় ভোগে।

অচেনা হাত ছুয়ে দেয় হৃদয়ের ওপরের ত্বক,

সে ছোঁয়া আগুন জ্বালাতে কই পারে?

একদিন জ্বলে যদি যাই, জ্বালিয়ে পুড়িয়ে সব ছারখার করে দিয়ে যাবো -

 

হাতে বাঁশ তুলে নিয়ে যদি,

ষোলোটা মানুষের মাথা থেঁতলে মারি

তুমি কি আমায় একটা ঘুমের ওষুধ তুলে দেবে?

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন