রত্নদীপা দে ঘোষ

 পাতার কমণ্ডলু, গানশেষ


দৌড়ে আসে স্মৃতি, জরিজলে ধুয়ে রাখে চশমার

সোনালী

বিবাহ আড়াল করে যে পাখিরা, তাদেরই পালকে

লেখা থাকে ভোরবেলার মেজোনাম

প্রতিমার শেষ অধ্যায় ধরো গান কাকলী হে!

প্রজাপতির তিনটি পাখার মতো বাঁচো, এয়োসাজ

পাশ ফিরে শুলে যে মুগ্ধতা,তাকে দিয়েই গাঁথা করো

বকুল, জাহাজের সিঁড়ি

অফুরান বৃষ্টিযাত্রা! ফিনকি দিয়ে সপ্তর্ষিকণা,

তাদের ফুটেওঠা দিয়ে

তৈরি হোক ঊর্মিবালিকার চাঁদ, হাতছানি

তুমি এক আশ্চর্য বুনোটের সূর্য

 

মাতোয়ারা দিয়ে বাঁধা তোমার বেড়া-বিনুনী

কোথাকার এক নাম-না-জানা রোদ তোমাকে ভুল

বানানে ইশারা করে

আর তুমি খুলে দাও চুমকিভিজে অন্তর্বাস

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন