সবর্ণা চট্টোপাধ্যায় / দুটি কবিতা

 আজকাল শান্ত থাকি বেশ


আজকাল শান্ত হয়ে গেছি বড়ো

দুদিন কথা না হলেও বুঝি, তুমি আছো

 

দেখছ। বুঝছ। আছো।

 

তোমার ক্লান্তিটুকু শরীর থেকে সরাতে পারিনা

বলে, কষ্ট হয়.. 

এ দূরত্ব, মাথায় হাত দেওয়ার নয়

এককাপ কফি এগিয়ে দেওয়ার নয়

এ দূরত্ব শুধু কবিতা হয়ে থাকে।

 

দরজা খুলে যখন সারাদিনের খাটাখাটনি 

ছুঁড়ে দাও ঘেমো জামার সাথে,

চুপিচুপি গন্ধ নিই

সে তৃপ্তি, তোমার কাছে নিয়ে যায়।

বাথরুমে গরম জল

সুগন্ধি সাবনের বুদবুদ

কোথাও একদিন এগুলো আমাদের ছিল।

তোমার গলার কাছে ঠোঁট রেখে বলেছিলাম

এই তো প্রিয় আশ্রয়।

 

আজকাল শান্ত থাকি বেশ।

তোমার চুলের ভেতর আঙুল নিয়ে খেলতে খেলতে

বারবার হারিয়ে ফেলি পথ।

তুমি ঘুমিয়ে পড়ো।

আমি জেগে থাকি সারারাত...তোমায় দুচোখ ভরে

দেখব বলে!

 

 

আমরা দেখেছি আজ

 

আমরা দেখেছি আজ 

জলের সে কারুকাজ, হারানো পথের ছবি শান্ত

গাছের কিনারে যেন দুটিতে বিশ্রামরত পান্থ। 

কি ভীষণ আফসোসে পুড়তে পুড়তে দুই চোখ

শীতের শহরে দেখো ঝরে পড়া পাতাদের শোক।

 

আদরে বা অনাদরে ছেড়ে গেছে যেমন সকাল

শিশিরের জলে ভেজা আব্দারে ফোলানো দুই গাল

তুমিতো দিয়েছ ভরে আবার সে নিভে যাওয়া ঘুম

কেটে যায় বিরতির দিনগুলো যেমন নিঝুম

 

আমরা দেখেছি আজ

গভীর চোখের সাজ। অনন্ত মিলিয়ে যেতে রাজি

সময়ের ঘেরাটোপে তবে আজ রাইশ্যাম সাজি।

তোমাকে ছুঁয়েছি প্রেমে, তাকে আজ বাঁধি হাওয়াডোরে

অবাধ্য বাতাসে আজ আড়ালের পর্দা গেছে সরে।

 

 

 

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন