পিয়ালী বসু ঘোষ

 ও নদী রে ---------


অনেক রাতে ঘুম না এলে নদীপারের জীবন আসে আধখোলা চোখের পাতায় |

তিতাসের বুকে চর জেগে ওঠার কষ্টকল্পনায়

রাধাচরণ যেমন দিনে দুপুরে দুঃস্বপ্ন দেখেছিলো,

তেমনই কোনো স্বপ্ন আসে চোখে |

 

স্রোতহারা নদীর মতো ছ্যাৎ করে ওঠে বুকের পাটাতন |

কাউকে বোঝানো যায়না নিরবলম্ব সেই রুদ্ধ তরলতা |

 দেখানো যায়না তন্বী নদীর চরে

অহেতুক জুড়ে বসা নগ্ন ভিটেদের জীবনচরিত |

 

অগত্যা উঠে বসা | চোখে মুখে জল দিতেই ছেলেবেলার ভাগীরথী

ডাগর চোখে বয়ে যায় গম্ভীর নিরুৎসবের মতো | দাঁড় ও জলের পারস্পরিক বোঝাপড়ায় মাঝি যে

ছলাৎ ছলাৎ শব্দ তোলে সে শব্দ সে কি আর যন্ত্রচালিত পানসি পারে তবু....

এই তো জীবন... নান্দনিক বৈচিত্র নাই থাক

কিছু তো আছে.... কিংবা হয়তো ছিলো... কখনো |

 

অজানা আশঙ্কায় শান্ত হয়ে যায় মন| দূর ঘাটে ফেরি বন্ধ হয়েছে |

নদী আরও আরও বেশী করে চাইছে জীবন..... অথচ জানি তার মন ভালো নেই|

বর্ষায় যে নদী ফুঁফিয়ে কেঁদে ওঠে, বুকে চর ছড়িয়ে গেলে সে কাঁদেনা কেন?

নদী কি মানুষ?

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন